কুড়িগ্রামে ৫ বছরের শিশু ধর্ষন মামলার আসামী গ্রেফতার

0
4
কুড়িগ্রামে ৫ বছরের শিশু ধর্ষন মামলার আসামী গ্রেফতার

কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি : কুড়িগ্রাম সদর উপজেলার ঘোগাদহ ইউনিয়নে ৫ বছরের এক শিশুকে ধর্ষণের অভিযোগে রাজু মিয়া (১৮) নামে একজনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। শুক্রবার (১৬ অক্টোবর) অভিযান চালিয়ে অভিযুক্ত রাজু মিয়াকে গ্রেফতার করে দুপুরে আদালতে প্রেরণ করা হয়। নির্যাতিত শিশুটি কুড়িগ্রাম জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে। মামলার তদন্তকারী অফিসার এস আই কাইয়ুম ও এজাহার সূত্রে জানা যায়, গত ১২ অক্টোবর ঘোগাদহ ইউনিয়নের কাচিরচর গ্রামের আবুল হোসেনের পূত্র রাজু মিয়া প্রতিবেশী মুকুলের ৫ বছরের শিশু কন্যাকে ডাব খাওয়ানোর কথা বলে বিকেল সাড়ে ৫টার দিকে মেয়েটিকে নিয়ে যায়। পরে শৌচাগারে নিয়ে গিয়ে ধর্ষণের চেষ্টা চালায়। এসময় মেয়েটির আর্তচিৎকারে প্রতিবেশী সহিদুলের স্ত্রী মলিনা, ছালামের স্ত্রী বেবীনা ও বারেকের স্ত্রী রাশেদা এগিয়ে আসলে রাজু মিয়া দৌঁড়ে পালিয়ে যায়।

এ ঘটনার পর শিশুটিকে চিকিৎসার জন্য কুড়িগ্রাম জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। রাতেই শিশুটির পিতা মুকুল হোসেন বাদি হয়ে রাজু মিয়াকে অভিযুক্ত করে কুড়িগ্রাম সদর থানায় ২০০০সালের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে (সংশোধনী/২০০৩) এর ১(৪)(খ) ধারায় মামলা দায়ের করেন। শিশুটির পিতা জানান, এ ঘটনার পর ধর্ষক রাজু মিয়ার পক্ষে কুড়িগ্রাম জেনারেল হাসপাতাল চত্বরে মীমাংসার জন্য চাপ দেয় অভিযুক্ত রাজু মিয়ার পক্ষে একই এলাকার কুরিয়ার বাজারের গালামাল ব্যবসায়ী সিরাজুল ও তার পরিচিত আলু ব্যবসায়ী হাবিবুর। তারা প্রথমে ৮০ হাজার ও পরে ১লক্ষ টাকা দিয়ে মামলা না করার পরামর্শ দেয়। এদিকে মুকুলের পরিবার থেকে তার চাচা সাবেক মেম্বার তেমাল হোসেন ও তার আপন ভাইয়েরা প্রথমে ৫লাখ ও পরে ৩ লক্ষ টাকা চান। বিষয়টি সাংবাদিকদের নজরে আসলে পুলিশ তৎপর হয়ে চারদিকে খোঁজখবর করে শুক্রবার কুড়িগ্রাম সদর

থানার অফিসার ইনচার্জ (তদন্ত) আনোয়ারুল ইসলাম ও মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই কাইয়ুম পুলিশ ফোর্স নিয়ে কাচিরচর কামারপাড়া গ্রামে তার মামার বাড়ি থেকে অভিযুক্ত রাজু মিয়াকে গ্রেফতার করতে সক্ষম হয়। শিশুটির স্বাস্থ্যগত ব্যাপারে কুড়িগ্রাম জেনারেল হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা: রেদওয়ান ফেরদৌস সজীব জানান, শিশুটির মেডিকেল চেকআপ করা হয়েছে। পাশাপাশি তার চিকিৎসা চলছে। বর্তমানে তার অবস্থা স্থিতিশীল রয়েছে। ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে কুড়িগ্রাম সদর থানার অফিসার ইনচার্জ (তদন্ত) আনোয়ারুল ইসলাম জানান, ঘটনা জানার পর থেকেই পুলিশ তৎপর ভূমিকা পালন করে। বারবার অবস্থান পরিবর্তন করায় অভিযুক্ত আসামীকে ধরতে বিলম্ব হয়। পরে শুক্রবার গোপন সংবাদের ভিত্তিতে আসামী রাজু মিয়াকে গ্রেফতার করে দুপুরে বিজ্ঞ চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে সোপর্দ করা হয়।

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here