তানোরের গর্ব ময়না

0
9
তানোরের গর্ব ময়না

,তানোর (রাজশাহী) প্রতিনিধিঃ রাজশাহী-১ আসনের আওয়ামী লীগ দলীয় সাংসদ ও সাবেক শিল্প প্রতিমন্ত্রী আলহাজ্ব ওমর ফারুক চৌধুরীর বিশস্ত সৈনিক আদর্শিক ও তরুণ নেতৃত্ব উপজেলা চেয়ারম্যান লুৎফর হায়দার রশিদ ময়না তার শিশুসুলভ আচরণ, নেতৃত্বগুন এবং রাজনৈতিক দুরদর্শীতা দিয়ে ধীরে ধীর তানোরের মানুষের কাছে গর্ব হয়ে উঠেছেন। বিশেষ করে সাধারণ মানুষের যেকোনো বিপদে তিনি মানবিক সহায়তা নিয়ে তাদের পাশ্বে দাঁড়িয়ে রাজনীতিতে অনন্য দৃস্টান্ত স্থাপন করেছেন। স্থানীয় সাংসদের দিকনির্দেশনা ও তার দেখানো পথ ধরেই তিনি মুল ধারার সঙ্গে রাজনীতি করে চলেছেন কখানো কোনো লোভলালসার স্রোতে গা-ভাসিয়ে দিয়ে পথভ্রস্ট হননি। আদর্শিক নেতৃত্ব বলতে যা বোঝায়, একেবারে তৃণমুল ওয়ার্ড কমিটি থেকে ধীরে ধীরে উঠে আশা নেতৃত্ব ময়না। এসব বিবেচনায় তাকে উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি হিসেবে দেখতে চাই

তৃণমুল এটা সময়েরও দাবি। জানা গেছে, করোনার সংক্রমণ এড়াতে বিভিন্ন পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে সরকার। সরকারের এসব নির্দেশনা বাস্তবায়নে স্থানীয় সাংসদের পরামর্শে তার পক্ষ থেকে মাঠ পর্যায়ে নিরলসভাবে কাজ করে চলেছেন উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান লুৎফর হায়দার রশিদ ময়না। স্থানীয় সাংসদের পাশাপাশি তিনি নিজ অর্থায়নেও প্রথম থেকেই জীবনের ঝুঁকি নিয়ে একটু বেশি তৎপর ও আন্তরিক দেখা গেছে ময়নাকে। উপজেলার ৭টি ইউনিয়ন ও ২টি পৌরসভার এমন কোন এলাকা নাই যেখানে স্থানীয় সাংসদের পক্ষ থেকে উপজেলা চেয়ারম্যানের হাতে ত্রাণ পাইনি। এমনকি তিনি নিজের অর্থেও রাতের আধাঁরেও বাড়ি বাড়ি খাদ্য সামগ্রী পৌছে দিয়েছেন অসহায় কর্মহীন নিম্ন আয়ের মানুষের মাঝে। স্থানীয় রাজনৈতিক পর্যবেক্ষক মহল এসব বিবেচনায় এমপি ফারুক চৌধুরীর পরবর্তী নেতৃত্ব হিসেবে ময়নাকে বিবেচনা করছে। চলতি বছরের ২৪ জুলাই

শুক্রবার স্থানীয় সাংসদের দিকনির্দেশনা ও পরামর্শে উপজেলা চেয়ারম্যান ময়না এদিন দিনব্যাপী গুড়িগুড়ি বৃস্টির মাঝে উপজেলার শিব নদী তিরবর্তী বন্যাদুর্গত বিভিন্ন এলাকা পরিদর্শন ও বন্যাকবলিত অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়িয়ে (ত্রাণ) খাদ্য সহায়তা বিতরণ করেছেন। ময়নার এই আন্তরিক প্রচেষ্টা নজর কেড়েছে উপজেলাবাসীর। স্থানীয় সাংসদের পক্ষ থেকে তিনি দিনরাত সমানতালে ছুটে চলছেন উপজেলার এক প্রান্ত থেকে অপর প্রান্তে সব প্রান্তেই তার সমান বিচরণ, শীত, করোনা ভাইরাস, ঝড়- বৃস্টি ও বন্যা প্রতিটি দুর্যোগেই তিনি রয়েছেন সাধারণ মানুষের মাঝে। এছাড়াও করোনা ভাইরাসে জনগণকে সচেতন করা, হোম কোয়ারেন্টাইন নিশ্চিত করা, দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণে রাখার পাশাপাশি নিন্ম আয়ের মানুষের খোঁজ-খবর রাখছেন। শুধু তাই নয় সাধারণ মানুষের মাঝে মাস্ক,শিশুদের খাবার ও হ্যান্ড সানিটাইজার বিতরণেও পিছিয়ে নেই। করোনা ভাইরাস সংক্রমণ ঠেকাতে

ঘরের বাইরে বের হতে নিষেধাজ্ঞায় খাদ্য সংকটের আশঙ্কার মধ্যে স্থানীয় সাংসদ আলহাজ্ব ওমর ফারুক চৌধুরীর পরামর্শে, দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের বরাদ্দে, অস্বচ্ছল এবং হতদরিদ্র সকল পরিবারের কাছে পৌঁছে দেওয়া হচ্ছে জরুরি (ত্রাণ) খাদ্যসামগ্রী। এমনকি এখানো এমপি বা উপজেলা চেয়ারম্যানের হট লাইনের নাম্বারে কল বা এসএমএস দিলেই পৌছে দিয়েছেন খাদ্য সামগ্রী। স্থানীয় সাংসদের প্রতিনিধি ও তানোর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান লুৎফর হায়দার রশিদ ময়না বলেন, ঘরের বাইরে বের হতে না পারলে খাদ্যের সংকট দেখা দেবে, দিনমজুর ও ভিক্ষুকদের পরিবারে। তাই ত্রাণ দুর্যোগ শাখার বরাদ্দে প্রতি পরিবারের জন্য ১০ কেজি চাল সকল ইউনিয়ন ও পৌরসভায় নিজ

হাতে পৌছে দিয়েছি। সাংসদের পক্ষ থেকে ১০ কেজি চাল, ১০ কেজি আলু ও ১ কেজি ডাল এবং ১ লিটার তেল, একটি সবানসহ অনেক কিছু মিলে একটি প্যাকেট করে নিম্ন আয়ের কর্মহীন মানুষের ঘরে ঘরে গিয়ে পৌঁছে দেওয়া হয়েছে এখানো হচ্ছে।এছাড়াও রিক্সা চালক,ভ্যান চালক, কুলি, ট্রলি চালক,দিন মজুর, রাজমিস্ত্রিসহ সকল শ্রেণী পেশার অসহায় মানুষের মাঝে পর্যাপ্ত পরিমানে খাদ্য সামগ্রী দেওয়া হয়েছে। উপজেলাবাসীর উদ্দ্যশে চেয়ারম্যান বলেন আমি আপনাদের সন্তান আপনাদের পাশে সব সময় এমন ভাবে থাকতে চাই। করোনা ভাইরাসের মহামারি ও অকাল বন্যায় উপজেলার কোন মানুষ যেনো খাবার সঙ্কটে না থাকে আমাদের সেই প্রচেস্টা অব্যহত থাকবে ইনশাল্লাহ্।#

 

 

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here