ভূরুঙ্গামারীতে মাতৃত্বকালীন ভাতার টাকা কম দিচ্ছে এজেন্ট

0
8
ভূরুঙ্গামারীতে মাতৃত্বকালীন ভাতার টাকা কম দিচ্ছে এজেন্ট

ভূরুঙ্গামারী (কুড়িগ্রাম) প্রতিনিধি: কুড়িগ্রামের ভূরুঙ্গামারীতে মাতৃত্বকালীন ভাতাভোগী মায়েদের পুরো টাকা না দিয়ে সেই টাকা মেরে দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে এজেন্ট ব্যাংকিং-এর সাথে জড়িত এক সাব-এজেন্টের বিরুদ্ধে। উপজেলার সব ইউনিয়নে এরূপ ঘটনা ঘটার আশংকা সচেতন মহলের। জানাগেছে, রোববার সকালে উপজেলার তিলাই ইউনিয়নের মাতৃত্বকালীন ভাতাভোগীদের ক্যাশ আউট সুবিধা দিতে ইউনিয়ন পরিষদ চত্বরে আসে ডাচ্-বাংলা এজেন্ট ব্যাংকিং ভূরুঙ্গামারী শাখার সাব-এজেন্ট থানাঘাট শাখার ফয়সাল আহম্মেদ ফজর। ভাতাভোগীরা মোবাইল ব্যাংকিং-এর ক্যাশ আউটের মাধ্যমে ভাতার টাকা উত্তোলন করছিলেন। এসময় ভাতাভোগীদের মোবাইল থেকে ক্যাশ আউটের ম্যাসেজ মুছে দিচ্ছিলেন ওই এজেন্ট। একজন ভাতাভোগী ম্যাসেজ মুছে দেয়ার বিষয়টি লক্ষ্য করেন। এর পরেই ভাতাভোগীদের কম টাকা দেওয়ার বিষয়টি সামনে চলে আসে। মায়েদের অজ্ঞতার কারণে অসাধু ব্যক্তিরা টাকা কম দেওয়ার সুযোগ নিচ্ছেন বলে অনেকের অভিমত।

কয়েকজন ভাতাভোগীর মোবাইলে আসা ক্যাশ আউট ম্যাসেজ চেক করে দেখা যায় ৭ হাজার ৪৯০ টাকা ক্যাশ আউট হয়েছে এবং ১০ টাকা অবশিষ্ট্য থাকার বিবরণ রয়েছে (ম্যাসেজ সংগ্রহে আছে)। কিন্তু ক্যাশ আউট ম্যাসেজ চেক করা ভাতাভোগীরা জানান তাদেরকে ৭ হাজার টাকা দেওয়া হয়েছে আর বাকি টাকা খরচ বাবদ কেটে রাখা হয়েছে। এছাড়া যাদের একাউন্টে ৭ হাজার ২০০ টাকা ছিল তাদের ক্যাশ আউট হয়েছে ৭ হাজার ১৯০ টাকা কিন্তু তাদের টাকা দেওয়া হয়েছে ৭ হাজার। গণমাধ্যম কর্মীরা টাকা কম দেওয়ার কারণ জানতে চাইলে ওই এজেন্ট জানান খরচ বাবদ টাকা কেটে রাখা হয়েছে। কিন্তু কি খরচ বাবদ কেটে রাখা হয়েছে এমন প্রশ্নের তিনি কোন সদুত্তর দিতে পারেননি। এক পর্যায়ে নেটওয়ার্ক সমস্যার অজুহাত দেখিয়ে ক্যাশ আউট বন্ধ করে স্থান ত্যাগ করেন সাব-এজেন্ট। তবে তিনি টাকা কম দেওয়ার বিষয়টি স্বীকার না করলেও অস্বীকার

করেননি এবং পরবর্তীতে ফোনে বিস্তারিত জানাতে চান। আরও জানা গেছে, রাতেই কিছুকিছু ভাতাভোগীর মোবাইল একাউন্টে ২৯০ টাকা ক্যাশ ইন করে দিয়েছে ওই এজেন্ট (ক্যাশ ইনের ম্যাসেজ সংগ্রহে রয়েছে)। টাকা কম দেওয়ার সাথে ইউনিয়ন পরিষদ জড়িত বলে অনেকেই আকার-ইঙ্গিতে অভিযোগ তুলেছেন।
তিলাই ইউপি চেয়ারম্যান ফরিদুল হক শাহিন শিকদার জানান, মাতৃত্বকালীন ভাতার টাকা কম দেওয়ার অভিযোগ পেয়েছি। মাতৃত্বকালীন ভাতাভোগীদের প্রাপ্য পুরো টাকা দেওয়ার জন্য অভিযুক্ত এজেন্টকে বলা হয়েছে। ভাতার টাকা কম দেওয়ার সাথে ইউনিয়ন পরিষদ জড়িত এমন প্রশ্নে তিনি বলেন এই অভিযোগ শতভাগ মিথ্যা। ডাচ্-বাংলা এজেন্ট ব্যাংকিং ভূরুঙ্গামারী শাখার দায়িত্বে নিয়োজিতদের ভাতার টাকা কম দেওয়ার বিষয়টি অবহিত করা হলে তারা বিষয়টি দেখবেন বলে জানান। উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তার সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি অভিযোগ পাননি বলে জানান।

 

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here